Wellcome to National Portal
মেনু নির্বাচন করুন
Main Comtent Skiped

খালওনদী

রাকৃতিক বৈচিত্র ও দিক-চাঞ্চল্য মাতামুহুরী নদী ঢেমুশিয়া ইউনিয়নে আরেক মাদকতা। মাতামুহরী নদীর কূলে /বালুর চরের উপর দাঁড়িয়ে নদী ও তার দুপাশে অনুপমতা সবুজাভ প্রসূন মন-প্রাণকে বিমুগ্ধ করে তোলে। এখানে ছ’মাস যেন বসন্ত। দক্ষিণ আর উত্তরে বিস্তর ফারাখ , একদিকে কাশ্মির তা অন্য দিকে নেপাল। সমলতার মাঝে অরুণ প্রীতিতে চেয়ে অনেক নব্য ভাস্কর। মাতামুহুরী কাজল কালো জল, তার উপর পানির ঢেউ খেলানো জল, পাশে এলোমেলো পাহাড়ের সুবিন্যস্ত সজ্জা যেন নিঃসীম বিভোরতা। সকালে  সুবণ কাশবন সবুজ নিগাঢ়, দূপুরে রুপালী কাননে চকচক প্রবাল , বিকেলে দিগন্তের আকুতিতে জীবনের সমাহার, সন্ধ্যায় নিঝুম নিস্তব্ধতা সুখেশ্বর মন্দির। পুরোটাই এক অপ্রকাশিত অনুভব। অবগাহনের মৃদঙ্গ প্রকাশ, প্রকৃতির প্রতুল প্রতিমা –প্রকাশের অবকাশ ক্ষীণ, স্ব-নয়ন ব্যতিরেকে। প্রতিদিন পাঁচ বার আজানের পুর্ত শব্দে সমুদ্রের জল আর নদীর কাকলি মিশে একাকার হয়ে যায় সৃষ্টার শ্রেষ্টে।
খাল:
১। ইউনিয়নের উত্তরে ভাগুজারা নদী
২।দক্ষিনে বদরখালী নদী
৩।পূর্বে মাতামুহুরী নদী
৪।পশ্চিমে কতুবদীয়া, মহেশখালী চ্যানেল।